TwitterFacebook

গোলাম নামা: আত্মপক্ষ সমর্থনের নামে ব্যাপক মিথ্যাচার ১


[গত বছর ১৪ ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবি হত্যা দিবসে গোলাম আযমের একটি সাক্ষাতকার প্রচারিত হয় বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে। মুক্তিযুদ্ধকালীন ভূমিকা নিয়ে জামাতে ইসলামীর এই সাবেক আমিরের মিথ্যাচার নিয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এই লেখাটিতে হাত দিয়েছিলাম। কিন্তু বারবার প্রতিশ্রুতি দিয়েও এটি পোস্ট করতে পারছিলাম না কয়েকটা কারণে। এক লেখাটা একটা দলিলভিত্তিক রূপ দেয়ার তাগিদ থেকে বারবার সংশোধন করছিলাম, দ্বিতীয় কারণটি ব্যক্তিগত ঝামেলা। বিশ্বস্ত কিছু মানুষের প্রতিশ্রুতি এবং সেটা না পূরণে যে ঝামেলা কারো জীবনে ওলটপালট হয়ে যেতে পারে এটা তারা কখনও বোঝেন না, কিংবা বোঝার চেষ্টা করেন না। যাহোক পরিস্থিতি যদি লেখালেখি বন্ধ রাখতে বাধ্য করে, সে ঝুঁকিতে যাওয়ার আগে পোস্টটা দিলাম।]

গোলাম আযমের ওই বিবৃতিমূলক সাক্ষাতকারের দুটো ভাগ আছে। প্রথমটি কূটিল এক রাজনৈতিক বিশ্লেষণে নিজের মুক্তিযুদ্ধকালীন অবস্থানকে জায়েজ করা। দ্বিতীয়টি মুক্তিযুদ্ধকালে তার অবস্থান কি ছিলো তার সাফাই। এই পোস্টে ওই দ্বিতীয় অংশটিকেই বেছে নেওয়া হয়েছে। প্রথম অংশটি নিয়ে লিখলে তার দৈর্ঘ্য আরেকটি পোস্টের সমান হবে। সে দায়িত্ব না এড়িয়েই শুধু বলা যায় সেখানেও প্রচুর মিথ্যাচার। যার জবাবও দেওয়া হবে, প্রয়োজনে এই পোস্টের মন্তব্যেও দাখিল করা যাবে। এখানে সাক্ষাতকারের টেক্সট ব্যবহার করে তার উত্তরে প্রমাণ দাখিল করা হয়েছে যে গোলাম মিথ্যা বলেছে।

সাংবাদিকঃ আমরা তো জানি ১৯৯২ সালে গণ আদালত হয়েছিল, ১৯৯৪ সালে গণতদন্ত কমিশন হয়েছিল, সেই সময়টা তো আসছিল।
গোলাম আযমঃ এইটা একটা সেকশন করেছিল কিন্তু যুদ্ধাপরাধী শব্দ ব্যবহার করে নাই।

সাংবাদিকঃ প্রতীকি বিচার হয়েছিল।

সাংবাদিকঃ এবং আপনার বিরুদ্ধে ১৯৯২ সালের ২৬শে মার্চ সোহরাওয়ার্দি উদ্যানে..

গোলাম আযমঃ যে ঘাতক নিমূর্ল কমিটি, জামায়াতে ইসলামীকে ঘাতক গালি দিয়েছে, কিন্তু যুদ্ধাপরাধী ইস্যু সামনে আনে নাই। রাজাকার বলে গালি দিয়ে কোন সময়, স্বাধীনতা বিরোধী বলেছে।

সাংবাদিকঃ এখন স্যার বিচারটা হচ্ছে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার। মানবতার বিরুদ্ধে যে কাজগুলি হয়েছে সেগুলির বিচার।

গোলাম আযমঃ হ্যা ঐটাই, মানবতাবিরোধী কাজটাকেই তো তারা যুদ্ধাপরাধ বলছে। দুইটা পরিভাষা তারা ব্যবহার করছে, আর ঐ আইনেই বিচার করছে যেটা যু্দ্ধাপরাধীদের জন্য করা হয়েছিল।

এগুলোর প্রমাণে ওপরের ছবিটিই যথেষ্ট,’৯৪সালে গণতদন্ত কমিশনের রিপোর্ট হাতে জাহানারা ইমাম ও বেগম সুফিয়া কামাল। সেটার প্রচ্ছদেই স্পষ্ট লেখা যুদ্ধাপরাধী কথাটা। আর ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি শুরু থেকেই আন্দোলন করে আসছে ’৭৩ সালের স্পেশাল ট্রাইবুনাল অ্যাক্ট দিয়ে এদেশীয় যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে। তালিকায় শীর্ষ নামটি গোলাম আযমের। আর মানবতাবিরোধী অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধ নিয়ে গোলাম ও তার দল জামাতে ইসলামী যতই ঘোট পাকানোর চেষ্টা করুক। দুটো একই জিনিস। যুদ্ধাপরাধের মধ্যেই রয়েছে হত্যা, ধর্ষন, উচ্ছেদ ইত্যাদি মানবতাবিরোধী অপরাধ। এখানে ভিকটিমরা সশস্ত্র বা সামরিক বাহিনীর সদস্য নয়, বেসামরিক লোকজন যারা যুদ্ধের পক্ষ নয় কিন্তু যুদ্ধকালে হিংস্রতার শিকার। একইভাবে যুদ্ধাপরাধীদের মধ্যেই রয়েছে ঘাতক ও দালালের সংজ্ঞাও । দালাল তারাই যারা মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানী সেনাবাহিনীকে সব ধরণের সহায়তা করেছে রাজনৈতিক ও সামাজিক সমর্থনের মাধ্যমে। ঘাতক তারাই যারা পাকিস্তানীদের সঙ্গে কাধে কাধ মিলিয়ে হত্যা-ধর্ষণ ও লুন্ঠনে মেতেছে। তাই গোলাম ও তার দলকে ঘাতক বলা হয়েছে দালাল বলা হয়েছে, যুদ্ধাপরাধী বলা হয়নি এটা হচ্ছে মূর্খের দাবি, যা অল্পশিক্ষিত কিংবা অশিক্ষিতদের কনভিন্স করবে। অবশ্য জামাত বরাবরই এদেশে শিক্ষায় অনগ্রসর অংশটাকে পুজি করে যা তা বুঝিয়ে ফায়দা লুটেছে। সময় এসেছে সেই মিথ্যাচারের মুখোশ খোলার।

১৯৭৩ সালে যে আইনটি করা হয়েছিলো সেটা পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধী ও তাদের এদেশীয় দালাল দুইপক্ষের কথা মাথায় রেখেই করা হয়েছিলো। এর আগে ’৭২ সালের দালাল আইনে যে বিচার চলছিলো তা ছিলো এদেশীয় আইন।এই বিচারকে আন্তর্জাতিক রূপ দিতেই স্পেশাল ট্রাইবুনাল এক্ট করা হয়। সেই আইনের শুরুতেই স্পষ্ট করে লেখা আছে:

ACT NO XIX OF 1973*

An Act to provide for the detention, prosecution and punishment of persons for genocide, crimes against humanity, war crimes and other crimes under international law

(Published in the Bangladesh Gazette, Extra., on July 20, 1973)

Whereas It is expedient to provide for the detention, prosecution and punishment of persons for genocide, crimes against humanity, war crimes and other crimes under international law and for matters connected therewith;
It is hereby enacted as follows :
1. Short title, extent and commencement.

(1) This Act may be called the International Crimes (Tribunals) Act 1973.
(2) It extends to the whole of Bangladesh.
(3) It shall come into force at once.

2. Definitions.
In this Act, unless there is anything repugnant in the subject or context.-
(a) ‘auxiliary forces’ includes forces placed under the control of the Armed Forces for operational, administrative, static and other purposes;
(b) ‘Government’ means the Government of the People’s Republic of Bangladesh;
(c) ‘Republic’ means the People’s Republic of Bangladesh;
(d) ‘service law’ means the Army Act, 1952 (XXXIX of 1952), the Air Force Act, 1953 (VI of 1953) or the Navy Ordinance, 1961 (XXXV of 1961) and includes the rules and regulations under any of them;
(e) ‘territory of Bangladesh’ means the territory of the Republic as defined in article 2 of the Constitution of the People’s Republic Of Bangladesh;
(f) ‘Tribunal’ means a Tribunal set up under this act.

3.Jurisdiction of Tribunal and crimes.

(1) A tribunal shall have the power to try and punish a person irrespective of his nationality who, being a member of any armed, defence or auxiliary force, commits or has committed in the territory of Bangladesh, whether before or after the commencement of this Act, any of the following crimes.

(2) The following acts or any of them are crimes within the jurisdiction of a Tribunal for which there shall be individual responsibility, namely : -

(a) Crimes against Humanity : namely murder, extermination, enslavement, deportation, imprisonment, abduction, confinement, torture, rape or other inhumane acts committed against any civilian population or prosecution on political, racial, ethnic or religious ground whether or not in violation of the domestic law of the country where perpetrated;

(b) Crimes against Peace : namely planning, preparation, initiation or waging of a war of aggression or a war of violation of international treaties, agreements or assurances;

(c) Genocide : meaning and including any of the following acts committed with intent to destroy in whole or in part, a national ethnic, racial, religious or political group, such as :

(i) killing members of the group;
(ii) causing serious bodily or mental harm to members of the group;
(iii) deliberately inflicting on the group conditions of life calculated to bring about its physical destruction in Whole or in part;
(iv) imposing measures intended to prevent births within the group;
(v) forcibly transferring children of the group to another group;

(d) War Crimes : namely, violation of laws of customs of war which include but are limited to murder, ill treatment or deportation to slave labour or for any other purpose of civilian population in the territory of Bangladesh; murder, ill treatment of prisoners of war or persons on the seas, killing of hostages and detenues, plunder of public or private property, wanton destruction of cities, towns or villages or devastation justified by military necessity;

(e) violation fo any humanitarian rules applicable in armed conflicts laid down in the Geneva Conventions of 1949;

(f) any other crimes under international law;

(g) attempt abetment or conspiracy to commit any such crimes;
h. complicity in or failure to prevent commission of any such crimes.

4. Liability for Crimes.

(1) When any crime specified in section 3 is committed by several persons, each of such person is liable for that crime in the same manner as if it was done by him alone;

(2) Any Commander or superior officer who orders, permits, acquiesces or participates in the commission of any of the crimes specified in section 3 is connected with any plans or activities involving the commission of such crimes or who fails or omits to discharge his duty to maintain discipline or to control or supervise the actions of the persons under his command or his subordinates or any of them commit any such crimes or who fails to take necessary measures to prevent the commission of such crimes is guilty of such crimes.

আইনে স্পষ্ট করেই উল্লেখ হয়েছে সামরিক বাহিনী এবং তাদের সহযোগী বাহিনীর কথা। এখানে সামরিক বাহিনী মানে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী। তাদের সহযোগী বাহিনী হচ্ছে রাজাকার (আল-শামস ও আল-বদর), মুজাহিদ, ইপিসিএএফ-এর মতো আধা-সামরিক বাহিনীগুলো। যুদ্ধাপরাধ এবং মানবতাবিরোধী অপরাধের স্পষ্ট সংজ্ঞা দেওয়া হয়েছে এই আইনে। সেইসঙ্গে চার নম্বর ধারায় স্পষ্ট করে বলা হয়েছে এসব অপরাধের দায়ভার কাদের ওপর বর্তাবে এবং গোলাম আযম সেই দায়েই অভিযুক্ত যুদ্ধাপরাধীদের একজন হিসেবে।

প্রাসঙ্গিক লিংক, যা গোলামের প্রথমে বলা অভিযোগগুলোকেও খন্ডন করে:
১. যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে বাংলাদেশ সরকারের প্রস্তাবনা ও সম্পূরক আইনগুলো
২.যুদ্ধাপরাধীদের বিচার,বঙ্গবন্ধু সরকারের যাবতীয় সমস্যা নিয়ে ডেইলি স্টারের একটি আর্টিকেল
৩. যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাতিলের দাবিতে মাওলানা ভাসানীর অনশনের ওপর মার্কিন দূতাবাসের তারবার্তা
৪. সাধারণ ক্ষমার ওপর একটি প্রামাণ্য পোস্ট
৫.পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধীদের নিয়ে আন্তর্জাতিক রাজনীতির ওপর সে সময়কার কিছু পত্রিকার রিপোর্টগুলোর সংকলন
৬. সাধারণ ক্ষমা ঘোষণার পর বাংলাদেশে তার প্রতিক্রিয়া নিয়ে মার্কিন দূতাবাসের তারবার্তা
৭. ৭৩ এর আইন নিয়ে একরামুল হক শামীমের একটি বিশ্লেষণ
৮. সিমলা চুক্তি, পাকিস্তানী যুদ্ধবন্দীদের মুক্তি ইত্যাদি নিয়ে ভারতীয়দের ভাষ্য

সাংবাদিকঃ এখন স্যার কালকে অভিযোগে আপনার বিরুদ্ধে ৫২টি অভিযোগ এনেছে এবং শতাধিক আপনার বিরুদ্ধে ঘটনার কথা বলেছে যে, সেগুলির ব্যাপারে আপনার বক্তব্য কি?

গোলাম আযমঃ তো এগুলি, আমার বক্তব্য হলো যে, একটা অভিযোগ নয় সবগুলি অপবাদ, এলিগেশন। তো তারা এলিগেশন দিয়েছে, আমি কোর্টেও বলব, আমাকেতো কোর্টে হাজির করতে হবে, হাজির হতে হবে, আমি বলবো যে একটাও প্রমাণ করুক। আমি চ্যালেঞ্জ দিচ্ছি, একটাও প্রমাণ করতে পারবে না, ইনশাআল্লাহ। শুধু শুধু একটা অভিযোগের নামে অপবাদ যেতে পারে, প্রমাণ না দিতে পারলে এটার কি হবে? আমি নিশ্চিত যে প্রমাণ করতে পারবে না একটাও।

প্রাথমিকভাবে গোলামের বিরুদ্ধে ৫২টি অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছিলো। সেগুলো অগোছালো ও সুবিন্যস্ত নয় বলে আদালত তা ফেরত পাঠিয়েছিলো। দ্বিতীয় দফা তার বিরুদ্ধে ৬২টি অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে। এর মধ্যে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে সহায়তা ও তাদের সঙ্গে চক্রান্তের ৬টি, তাদের সঙ্গে পরিকল্পনার ৩টি, উস্কানি দেয়ার ২৮টি, সম্পৃক্ততার ২৪টি এবং ব্যক্তিগতভাবে হত্যা ও নির্যাতনের একটি অভিযোগ রয়েছে। এখন তার দলের আরো অনেকের মতো গোলাম যদি মনে করে নিজের হাতে গুলি না চালালে কিংবা ধর্ষণে অংশ না নিলেই সে নিরপরাধ, তাহলে সেটা নিতান্তই দলীয় সমর্থকদের প্রবোধ দেওয়ার নিমিত্তে মিথ্যাচার।

গোলামের চ্যালেঞ্জটা সহজেই গ্রহণ করা যায়। কারণ আগেই বলেছি তার বিচার হচ্ছে ‘৭৩এর স্পেশাল ট্রাইবুনাল অ্যাক্টের ৪ নম্বর ধারায় উল্লিখিত দায়ভারের নিমিত্তে। এখন এখানে তাকে অভিযুক্ত করার জন্য নীচের কারণগুলোই যথেষ্ট:

১. গোলাম আযম ১৯৭১ সালে পূর্ব পাকিস্তান জামাতে ইসলামীর আমির ছিল। দলীয় প্রধান হিসেবে গোটা দেশে মুক্তিযুদ্ধকালে তার দলের যাবতীয় মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ভার তার ওপর বর্তায়।
২. গোলাম আযম পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সহযোগী শান্তি কমিটির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং শীর্ষ নেতাদের একজন ছিলো। শান্তি কমিটির নেতৃত্বে সারা দেশে মুক্তিযুদ্ধকালে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ভার তার ওপর বর্তায়।
৩. জামাতে ইসলামী পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর যাবতীয় তৎপরতাকে রাজনৈতিক সমর্থন দিয়েছিলো। এসব তৎপরতায় গণহত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট এবং বাস্তভিটা থেকে উচ্ছেদের মতো মানবতাবিরোধী অপরাধ অন্তর্ভূক্ত। এসব অপরাধের সমর্থন গোলাম জামাতের দলীয় প্রধান হিসেবেই অনুমোদন করেছে।
৪. জামাতে ইসলামী রাজাকার বাহিনী এবং এর অধীনস্থ বিশেষ ঘাতক সংস্থা আল-বদর গঠন করে। এসব বাহিনী পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর সহযোগী বাহিনী হিসেবে মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটনের দায়ে অভিযুক্ত। যেহেতু শীর্ষ নেতৃত্বের অনুমোদন ও আদেশক্রমেই রাজাকার এবং আল-বদর বাহিনীর সৃষ্টি, তাই তখনকার আমির গোলাম আযমকে সেই অনুমোদন ও আদেশের দায় নিতেই হবে। এখানে এটা উল্লেখ করা দরকার যে রাজাকার বাহিনীকে (আল-শামস ও আল-বদর) ব্যবহার করে জামাতে ইসলামী তাদের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষদের নির্মূল এবং মানবতাবিরোধী অপরাধ চালাচ্ছে এমন অভিযোগ তাদের সমমনা রাজনৈতিক দলগুলোই সেসময় করেছিলো। গোলাম আযম ও তার দল এসব সমালোচনাকে ইসলাম ও পাকিস্তান বিরোধী বলে পাল্টা বিবৃতি দিয়ে নিজেদের কর্মকান্ডকে নায্য বলে দাবি করে।
৫.আল-বদর বাহিনী সুনির্দিষ্টভাবে গঠিত হয়েছিলো জামাতের ছাত্রসংগঠন পূর্ব পাকিস্তানী ইসলামী জামাতে তালাবা বা ইসলামী ছাত্র সংঘের (বর্তমানে ইসলামী ছাত্র শিবির)সদস্যদের নিয়ে। বিজয়ের আগে বুদ্ধিজীবি হত্যার জন্য এই আল-বদর সদস্যরা অভিযুক্ত। রাজাকার ও আল-বদর বাহিনীর প্রশিক্ষণ শিবিরগুলোতে গিয়ে তাদের উৎসাহ প্রদান এবং তাদের কর্মকাণ্ডকে সমর্থন করার দায়ে গোলাম অভিযুক্ত।

দেখা যাক এই অভিযোগগুলোর স্বপক্ষে কি কি প্রমাণ আছে আমাদের হাতে।

১. প্রসঙ্গ আমির হিসেবে দলীয় দায়:

১৯৭১ সালে প্রকাশিত যাবতীয় পত্র-পত্রিকায় গোলাম আযমকে পূর্ব পাকিস্তান জামাতে ইসলামীর আমির বলে সম্বোধন করা হয়েছে এবং সে ওই পদবীতেই যাবতীয় বক্তৃতা ও বিবৃতি দিয়েছে যার একটির ছবি নীচে দেওয়া হলো

জামাতে ইসলামী দলীয়ভাবে কি ধরণের মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে তার প্রমাণ হিসেবে তুলে দেওয়া যেতে পারে একটি ভিডিও ফাইল। ব্রিটেনভিত্তিক চ্যানেল ফোর প্রযোজিত ‘ওয়ার ক্রাইমস ফাইল’ নামের তথ্যচিত্রটি থেকে নেওয়া এই ফুটেজে সিলেটে জামাতের একটি জনসভার কর্মকান্ড এবং তারপর সংঘটিত একটি হত্যাকান্ডের বর্ণনা শোনা যাক প্রত্যক্ষদর্শীর মুখে। প্রসঙ্গত এ হত্যাকাণ্ড জামাত রাজাকার বা আলবদরের সামরিক লেবাসে ঘটায়নি:

২. প্রসঙ্গ শান্তি কমিটির নেতৃত্বের দায়:

১৯৭১ সালের ৪ এপ্রিল নুরুল আমিনের নেতৃত্বে খাজা খয়েরউদ্দিন এবং গোলাম আযমসহ ১২ জন রাজনৈতিক নেতা পূর্ব পাকিস্তানের সামরিক আইন প্রশাসক টিক্কা খানের সঙ্গে দেখা করে এবং সেনাবাহিনীকে রাজনৈতিক সমর্থন দেওয়ার আশ্বাস দেয় এবং এ জন্য ‘সর্বদলীয় নাগরিক কমিটি’ গঠনের প্রস্তাব দেয়। এ বিষয়ে ৫ এপ্রিল প্রকাশিত পূর্বদেশ পত্রিকায় লেখা হয় প্রতিনিধিদল টিক্কা খানকে ‘অবিলম্বে সমগ্র প্রদেশে সম্পূর্ণ স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে সামরিক আইন প্রশাসনকে সম্পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস এবং জনগণের মন থেকে ভিত্তিহীন ভয় দূর করার উদ্দেশ্যে ঢাকায় নাগরিক কমিটি গঠনের প্রস্তাব দেয়।’ টিক্কা খান তাদের ‘শুধু বক্তৃতা বিবৃতির মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে দেশের অখন্ডতা রক্ষায় ফলপ্রসু কাজ করতে নির্দেশ দেন।’ …‘বৈঠক শেষে নেতৃবৃন্দ রেডিওতে ভাষণ দিয়ে সামরিক কর্তৃপক্ষকে সহায়তার প্রতিজ্ঞা করেন’ সে প্রতিজ্ঞা পালন করেছিল গোলাম আযম।

টিক্কা চেয়েছিল পূর্ব পাকিস্তানের এসব মৌলবাদী দল একই প্লাটফর্মে থেকে সামরিক বাহিনীকে সার্বিক সহযোগিতা করবে। সেটা ধাক্কা খায় শান্তি কমিটির নেতৃত্ব নিয়ে জামাতের সঙ্গে নেজামে ইসলামী, মুসলিম লীগের তিনটি অংশ (কাউন্সিল, কাইয়ুম ও কনভেনশন) এবং পিডিপির সংঘাতে।বিশেষ করে মৌলভী ফরিদ আহমদ (নেজামে ইসলামী প্রধান) ও নুরুজ্জামান (পাকিস্তান পিপলস পার্টির পূর্ব পাকিস্তান প্রধান) জামাতের নেতৃত্বে কাজ করতে অস্বীকৃতি জানায়। এ কারণে ৬ এপ্রিল পাকিস্তান অবজারভার সম্পাদক হামিদুল হক চৌধুরীকে নিয়ে টিক্কা খানের সঙ্গে আবারও দেখা করে গোলাম আযম এবং আগের প্রস্তাবনাটি আরেকটু ঘষামাজা করে ‘নাগরিক শান্তি কমিটি’ গঠনের অনুমোদন চায়। মূলত হামিদুল হক চৌধুরীর মধ্যস্থতাতেই জামাতের সঙ্গে অন্য দলগুলোর মতপার্থক্য ভুলে রাজনৈতিক সমঝোতা হয় সর্বদলীয় শান্তি কমিটি গঠনে।

৯ এপ্রিল পূর্ব পাকিস্তানের গভর্ণর হিসেবে শপথ নেয় টিক্কা খান। একই দিন খাজা খয়েরউদ্দিনকে আহবায়ক করে ১৪০ জন সদস্য নিয়ে ঢাকায় নাগরিক শান্তিকমিটি আত্মপ্রকাশ করে। এর সংগঠক হিসেবে নাম দেওয়া হয় তিনজনের: অধ্যাপক গোলাম আযম, এ.কিউ.এম শফিকুল ইসলাম এবং মওলানা সৈয়দ মাসুম। তবে পত্রিকায় এই খবর আসে ১১ এপ্রিল। কারণ গঠনের পরপরই এর নেতৃত্বে আবারও কোন্দল দেখা দেয়। ১০ তারিখ মৌলভী ফরিদ আহমদকে সভাপতি করে ৯ সদস্যের একটি স্টিয়ারিং কমিটি গঠন করে মূল শান্তি কমিটি থেকে বের হয়ে যায় এবং গঠন করে ‘পূর্ব পাকিস্তান শান্তি ও কল্যান কাউন্সিল’।

১৩ এপ্রিল বায়তুল মোকাররমে জোহারের নামাজের পর একটি মিছিল বের করে শান্তি কমিটি। ‘পাক-চীন জিন্দাবাদ, দুষ্কৃতিকারীরা দূর হও, মুসলিম জাহান এক হও, ভারতকে খতম করো’ ইত্যাদি ফেস্টুন নিয়ে মিছিলটি ঢাকার প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে নিউমার্কেটে শেষ হয়। মিছিল শেষে খাজা খয়েরউদ্দিন বক্তৃতা করে এবং মোনাজাত পরিচালনা করে গোলাম আযম। সমাবেশ শেষে মিছিলকারীরা আজিমপুর কলোনী, শান্তিনগর, শাখারি বাজারসহ বিভিন্ন স্থানে বাঙালীদের বাড়িঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন দেয় এবং অনেককে হত্যা করে রাস্তায় ফেলে রাখে।


১৪ এপ্রিল নাগরিক শান্তিকমিটির বৈঠক বসে।
সেখানে নাম পরিবর্তন করে ‘পূর্ব পাকিস্তান কেন্দ্রীয় শান্তি কমিটি’ রাখা হয়। এর ফলে কমিটি সারা পূর্ব পাকিস্তানে তাদের শান্তি প্রতিষ্ঠার কাজ চালিয়ে যেতে পারবে বলে সভার প্রস্তাবে উল্লেখ করা হয়। প্রস্তাবে আরো বলা হয় প্রয়োজন অনুসারে কমিটি যে কোনো সময় সদস্য সংখ্যা বাড়াতে পারবে। পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন জেলা মহকুমা, থানা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে ইউনিট গঠন করে ‘মিশনের কাজ’ সাফল্যমন্ডিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভা যে কোন বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং কার্যকর করার জন্য ২১ সদস্যের একটি ওয়ার্কিং কমিটি গঠন করে যার অন্যতম সদস্য ছিল গোলাম আযম। বর্ষীয়ান খায়েরউদ্দিনকে সাইনবোর্ড হিসেবে ব্যবহার করলেও জামাতে ইসলামীর হাতেই ছিলো এর নেতৃত্ব। যার প্রমাণ হিসেবে উল্লেখ করা যেতে পারে শান্তি কমিটির কেন্দ্রীয় অফিসের ঠিকানা। মগবাজারের ৫ নং এলিফেন্ট লেনের সেই বাড়িটি এখন বাংলাদেশ জামাতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় অফিস হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ১৬ এপ্রিল আবার টিক্কা খানের সঙ্গে বৈঠক করে নিজেদের কার্যক্রম শুরু করার কথা জানায় গোলাম আযমসহ শান্তি কমিটির শীর্ষ নেতৃত্ব।

প্রথমেই এটা জেনে নেওয়া যাক শান্তি কমিটি আসলে কতখানি শক্তিধর ছিলো যে তাদের পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মতো একই যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত করা যাবে! বিস্তারিত আখ্যানে যাওয়ার আগে সে সময়কার রাজনৈতিক প্রেক্ষিতটা আমলে আনা যাক। পূর্ব পাকিস্তান তখন সামরিক আইনের আওতায় চলছিলো এবং সামরিক বিধিবলে সব ধরণের মিটিং-মিছিল এবং বেসামরিক লোকজনের সশস্ত্র চলাফেরা নিষিদ্ধ ছিলো। তবে ইসলামী সমাবেশের ক্ষেত্রে এই আইন ছিলো শিথিল, শান্তি কমিটির ক্ষেত্রে পুরোপুরি ছাড় দেওয়া হয়েছিলো আইনটিতে। ১৫ জুন সামরিক অধ্যাদেশ নং-২১ জারি করে এলাকাভিত্তিক ও আঞ্চলিক সব স্থানীয় কমিটিকে বিলুপ্ত করার অধিকার আদায় করে টিক্কা খানের অধীনস্থ প্রশাসন। মহল্লার সর্দার প্রথা, ইউনিয়ন কমিশনার কিংবা চেয়ারম্যানদের ক্ষমতা বিলুপ্ত করে সে জায়গাটা এককভাবে দেওয়া হয় শান্তি কমিটিকে। তারাই সরাসরি সামরিক প্রশাসকের বেসামরিক প্রতিনিধির মর্যাদা পায়। একইভাবে অস্ত্রবহন ও স্থানান্তরের বিধিটিও (সামরিক অধ্যাদেশ নং-১২২) শান্তি কমিটির অধীনে অস্ত্র প্রশিক্ষণ এবং তাদের সেগুলো ব্যবহারের অনুমোদন জায়েজ করা হয়।

মূলত আওয়ামী লীগ, হিন্দু এবং স্বাধীনতাপন্থীদের তালিকা তৈরি করে সেগুলো সামরিক প্রশাসনকে সরবরাহ করার দায়িত্বে ছিলো শান্তি কমিটি। পরে তারা এই সহযোগিতা সামরিক ক্ষেত্রেও বিস্তৃত করার অধিকার আদায় করে নেয়। গঠন করে বিভিন্ন রকমের স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী। এমন বাহিনীর মধ্যে রাজাকার,মুজাহিদ, ইস্ট পাকিস্তান সিভিল আর্মড ফোর্সেস অন্যতম। শান্তি কমিটির ছায়ায় জামাত গঠন করে রাজাকার যার দুটো শাখা ছিলো আল-শামস (সদস্য ও সমমনাদের নিয়ে গঠিত) এবং আল-বদর (ইসলামী ছাত্র সংঘের সদস্যদের নিয়ে গঠিত)। মুজাহিদ বাহিনীও শান্তিকমিটির আওতাভুক্ত হলেও এতে অন্তভূর্ক্ত ছিলো অন্য দলগুলোর সদস্যরা। যদিও এদের অস্ত্র বন্টন ও সনদ জামাতে ইসলামীর প্যাডেও অনেকসময় দেওয়া হয়েছে। এর একটা কারণ হতে পারে মূল প্রতিপক্ষ নেজামে ইসলামীর চেয়ে জামাতের সাংগঠনিক বিন্যাস আরো বিস্তৃত ছিলো এবং মুসলিম লীগ তিন খন্ডে বিভক্ত হওয়ায় তারাও বাধ্য হয়ে জামাতের নেতৃত্ব মেনে নিয়েছিলো।

রাজাকার নির্বাচন, নিয়োগ ও নিয়ন্ত্রণ শান্তি কমিটির অন্যতম দায়িত্ব ছিলো। এর প্রমাণ হিসেবে ‘৭১এর ২১ জুন শান্তি কমিটির ওয়ার্কিং কমিটির তরফে শাখা কমিটিগুলোর কাছে পাঠানো নির্দেশনাটি তুলে ধরা যেতে পারে। মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের সংগ্রহে থাকা এই দলিলটিতে একদম উপরে ডানে ওয়ার্কিং কমিটির এক নম্বর সদস্য হিসেবে গোলামের নাম লেখা হয়েছে। নির্দেশনার ‘ই’ পরিচ্ছদে বলা হয়েছে:

সামরিক প্রশাসকের দফতর থেকে আঞ্চলিক কার্যালয়গুলোতে দেশপ্রেমিকদের নিয়ে রাজাকার এবং গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী গঠন করার নির্দেশ পাঠানো হয়েছে এবং তাদের রাইফেল এবং প্রয়োজনীয় ট্রেনিং দেওয়া হবে । জেলা এবং বিভাগীয় শান্তি কমিটিগুলোকে অবিলম্বে সংশ্লিষ্ট সামরিক আইন প্রশাসকের কার্যালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে কারণ শান্তি কমিটির সুপারিশেই সরকার রাজাকারদের প্রশিক্ষণ এবং অস্ত্র সরবরাহের উদ্যোগ নিয়েছে। এজন্য সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলোয় শান্তিকমিটির তত্বাবধানে অবিলম্বে প্রতিরক্ষা বিষয়ক উপ-কমিটি গঠন করতে হবে এবং তারা শুধু এই বিষয়টাতেই পুরোপুরি এবং সর্বোতভাবে মনযোগ দেবে। একই নির্দেশনায় পরিত্যক্ত বাড়িঘর দখলের নির্দেশনাও রয়েছে।

শান্তি কমিটির দেশজুড়ে স্বাধীনতাবিরোধী তৎপরতায় কতখানি সংশ্লিষ্ট ছিলো তার প্রমাণ হিসেবে আমরা কিছু উপাত্ত তুলে ধরতে পারি:

ক. ঢাকা শহরের একজন রাজাকারের পরিচয়পত্র। মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে সংরক্ষিত এ পরিচয়পত্রটিতে শান্তি কমিটির উল্লেখ লালদাগ দিয়ে চিহ্নিত করা হয়েছে

খ. পাকিস্তানী সেনাবাহিনীকে কষ্ট করে ঘরে ঘরে ঢুকে ধর্ষণ করতে হতো না। বরং শান্তি কমিটিই তাদের জন্য নিয়মিত মেয়ে সরবরাহের দায়িত্ব নিয়েছিলো। প্রমাণ হিসেবে একটা চিঠি তুলে দেওয়া যেতে পারে। ‘৭১এর ২৮ মে বরিশালের ঝালকাঠি শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান ছলিমুদ্দিন মিয়া এক চিঠি পাঠিয়েছিলেন কীর্তিপাশা ইউনিয়ন শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান আজহার মিয়াকে। শান্তি কমিটির আঞ্চলিক প্যাডে লেখা চিঠির কথাগুলো এরকম:

“ভাই সাহেব
সালামবাদ সমাচার, আপনার কীর্তিশালা কমিটিতে ইউনিট কমান্ডার হিসেবে আঃ রবের নাম শাহ আলম ছার পাশ করিয়া নিয়েছেন। অল্প কয়েকদিনের মধ্যে উত্তর দিকের শয়তান দমন করার জন্য যাইতে হইবে। আপনার এলাকার সব ইন্ডিয়ান দালালদের যত তাড়াতাড়ি পারেন ধরিয়া ক্যাম্পে পাঠাবেন। ওদের হেদায়েত করার পর উত্তর দিকের অপারেশন শুরু করা হইবে। এদিকে ইতিপূর্বে পাঠানো অস্ত্র যেন ইন্ডিয়ার দালালরা খুঁজে নিতে না পারে। বেগ সাহেবের জন্য ভালো মাল পাঠাবেন। রোজ অন্তত একটা অন্যদের জন্য মাল পারেন। খোদা আমাদের সহায় আছেন। আল্লাহ হাফেজ।”

গ. মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে রক্ষিত এই চিঠিটি বঙ্গবন্ধুকে লিখেছিলেন এক বীরাঙ্গনার বাবা। ১৩ ডিসেম্বর তার বাড়ি ঘেরাও করে তার পরিবারের সদস্যদের হত্যার পাশাপাশি মেয়েকে তুলে নিয়ে যায় রাজাকাররা।

ঘ. ৩১ জুলাই নাটোরের মিনার সিনেমা হলের ম্যানেজারকে পাঠানো চিঠি। প্রশিক্ষণরত রাজাকারদের মাইন্ড রিফ্রেশের জন্য নাইটশোতে বিনে পয়সায় সিনেমা দেখানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে শান্তি কমিটির প্যাডে:

ঙ. ভুরুঙ্গমারির এক মুসলিম লীগ নেতার ক্ষতিপূরণ চেয়ে আবেদন পত্র। শমসের-ই-মূর্তজা নামে ওই লোক দাবি করে মুক্তিবাহিনী তার ঘরবাড়ি আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে এবং রংপুরে একটি পরিত্যক্ত সম্পত্তি দখল করে সেখানে বাড়ি নির্মাণে সহায়তা চেয়ে ১৮ হাজার ৩২০ টাকা দাবি করে। তার আবেদনটি মঞ্জুর করে শান্তি কমিটি :

চ. ভারতীয় অনুপ্রবেশকারী এবং দুষ্কৃতিকারীদের (দুটোই ছিলো মুক্তিযোদ্ধাদের জামাতি সম্বোধন) নিয়মিতই তারা হত্যা করছিলো এবং সেগুলো খবরও হচ্ছিলো। প্রমাণ হিসেবে দেওয়া যেতে পারে ৬ আগস্ট পাকিস্তান অবজারভার পত্রিকায় প্রকাশিত তাদের একটি সাফল্যের খবর। কুষ্টিয়ার কুমারখালিতে ৬ জন ভারতীয় দালালকে (মুক্তিযোদ্ধা) হত্যা এবং দুজনকে বন্দী করার ওই খবরে স্থানীয় শান্তিকমিটির চেয়ারম্যানের (জামাত সদস্য) স্ত্রীও অংশ নিয়েছেন বলে লেখা হয়।

৩. প্রসঙ্গ :পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে রাজনৈতিক সমর্থনের দায়

জামাতের রাজনৈতিক সহযোগিতার প্রমাণ হিসেবে আমরা আমলে নিতে পারি ১৯৭১ সালের ১৮ থেকে ২১ আগস্ট লাহোরে অনুষ্ঠিত জামাতের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকের সারবেত্তাকে। টানা চারদিনের ওই বৈঠক শেষে জামাতে ইসলামী এর কেন্দ্রীয় নেতাদের সম্মতিক্রমে একটি রাজনৈতিক সংহতিপত্র (পলিটিকাল রেজ্যুলুশন) প্রকাশ করে যেখানে পূর্ব পাকিস্তানে পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর যাবতীয় কর্মকান্ডকে বৈধ বলে স্বীকৃতি দেওয়া হয় এবং তাতে সমর্থন জানানো হয়। একই বৈঠকে পূর্ব পাকিস্তানের শান্তি শৃংখলা ফেরাতে সেনাবাহিনীকে আরো কঠোর হওয়ার আহবান জানায় তারা। ২০ আগস্ট পাকিস্তানী বার্তাসংস্থা পিপিআইর বরাত দিয়ে ‘ Jamaat upholds action to crush armed rebellion’ শিরোনামে দ্য মর্নিং নিউজ পত্রিকায় লেখা হয়:

The action taken by the Government of Pakistan to crush the armed rebellion in East Pakistan by the outlawed Awami League in connection with Indian warlords and their agent has been fully upheld by the central council of the Jamaat-i-Islami which went into session for the third consecutive day here today under the presidentship of the Deputy chief of the party Maulana Abdur Rahim.

আগেই বলা হয়েছে সামরিক সমর্থনে বাকি রাজনৈতিক দলগুলোর চেয়ে আলাদাভাবে নিজেদের চেনাতে উদ্যোগী ছিলো জামাত। এর নমুনা মেলে গোলামের একটি বক্তব্যে। ১৭ আগস্ট ওই বৈঠক উপলক্ষ্যে লাহোরে নামার পর পাকিস্তানি সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের জবাব দেয় সে।পূর্ব পাকিস্তানে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের জোটে জামাতের অন্তর্ভুক্তির প্রশ্নে গোলাম স্পষ্ট জানায় : Jamaat had nothing to do with the merger of various political parties. The Jamaat, he said, would keep its entity as it could not accept readymade leadership. (morning news 18th august 1971)

দলীয় সংবিধানে এই সমর্থনকে সর্বসম্মতিতে পাশ করানোর আগে থেকেই অবশ্য বক্তৃতা বিবৃতিতে এসব কথা বলে আসছিলো গোলাম আযম। প্রমাণ হিসেবে তুলে ধরা যেতে পারে ২০ জুন লাহোরে জামাত কার্যালয়ে তার বক্তৃতার অংশবিশেষ। ২১ জুন বার্তাসংস্থা এপিপির বরাতে ‘সামরিক হস্তক্ষেপ ছাড়া দেশকে রক্ষা করার বিকল্প ছিলো না’ শিরোনামে গোলামের বক্তব্য ছাপে পাকিস্তানের বিভিন্ন পত্রিকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Archive I: Media Archive

Archives news reports, opinions, editorials published in different media outlets from around the world on 1971, International Crimes Tribunal and the justice process.

Archive II: ICT Documentation

For the sake of ICT’s legacy this documentation project archives, and preserves proceeding-documents, e.g., judgments, orders, petitions, timelines.

Archive III: E-Library

Brings at fingertips academic materials in the areas of law, politics, and history to facilitate serious research on 1971, Bangladesh, ICT and international justice.

Archive IV: Memories

This archive records from memory the nine-month history of 1971 as experienced and perceived by individuals from all walks of life.

Partners

Website Sections

External Resources

Tools

About Us

Follow Us